News

More opportunities for EU investors to invest in Bangladesh

Summary

Investment opportunities for the European Union (EU) investors in the service sector of Bangladesh have been increased nine percent, said Commerce Minister Tofail Ahmed. He opined that the joint investment by the European Union investors will be increased in Bangladesh.

Updated on : 01-08-2017


More opportunities for EU investors to invest in Bangladesh

দেশের সেবা খাতে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) উদ্যোক্তাদের বিনিয়োগের সুযোগ ৯ শতাংশ বাড়ানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। তিনি বলেন, এতে ইউরোপের দেশগুলোর উদ্যোক্তাদের এ দেশে যৌথ বিনিয়োগ আরও বাড়বে। আগের নিয়মে সেবা খাতে যৌথ বিনিয়োগের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অংশীদারিত্ব ছিল ৬০ ও ইইউর ৪০ শতাংশ। এখন সেটা যথাক্রমে ৫১ ও ৪৯ শতাংশ করা হয়েছে। বিদেশি বিনিয়োগ বাড়াতে এ সুযোগ দেওয়া হয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার বাণিজ্যমন্ত্রী ও ইইউর রাষ্ট্রদূত পিয়েরে মায়াদুনের নেতৃত্বে সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে তৃতীয় ব্যবসায় পরিবেশ সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়। সংলাপ শেষে তোফায়েল আহমেদ সাংবাদিকদের এ কথা জানান।


বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ইইউর প্রস্তাব অনুযায়ী সেবা খাতে বিনিয়োগের অংশীদারিত্বের অংশ বাড়ানো হয়েছে। ফলে বিনিয়োগ আরও বাড়বে। তিনি বলেন, ইইউ ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী অধিকাংশ পোশাক কারখানার উন্নয়ন করা হলেও সে অনুযায়ী পণ্যের দাম বাড়েনি। রানা প্লাজা ধসের পর ২৭০টি সবুজ কারখানা করা হয়েছে। সংলাপে পণ্যের দাম বাড়াতে অনুরোধ করেন তিনি। ইইউ প্রতিনিধিরা তাদের ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত জানাবেন। তিনি বলেন, ব্রেক্সিটের পর পাউন্ড ও ইউরোর দাম কমেছে। এ বিষয় বিবেচনা করে পণ্যের দাম বাড়ানো প্রয়োজন। 

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ২০১৮ সালের মে মাসে ইইউর ক্রেতাদের জোট অ্যাকর্ডের মেয়াদ শেষ হচ্ছে। সংলাপে ইইউর পক্ষ থেকে অ্যাকর্ডের মেয়াদ ২০২১ সাল পর্যন্ত বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। মেয়াদ শেষে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তিনি আরও বলেন, গত বছরের মে ও ডিসেম্বরে এ বিষয়ে দুটি সংলাপ হয়। প্রথম সংলাপে আমদানি শুল্ক, শুল্ক ব্যবস্থাপনা, বাণিজ্যে সহযোগিতা বৃদ্ধি, ওষুধ রফতানি, লাইসেন্স ও বিনিয়োগ, অর্থনৈতিক ও কর কাঠামো নিয়ে পাঁচটি ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠন করা হয়েছিল। কমিটিগুলোতে বিডা, এনবিআর ও বাংলাদেশ ব্যাংক যৌথভাবে ১০টি সমস্যা চিহ্নিত করে। সমস্যাগুলোর অধিকাংশ সমাধান করা হয়েছে। এ বিষয়টিও সংলাপে জানানো হয়েছে।

পিয়েরে মায়াদুন বলেন, সেবা খাতে অংশীদারিত্বে বিনিয়োগের সুযোগ বৃদ্ধি করা হয়েছে। এতে এ দেশে ইইউর বিনিয়োগ আরও বাড়বে। তিনি বলেন, এ দেশের তৈরি পোশাক কারখানার মান অনেক উন্নত হয়েছে। এ উন্নয়নে সহযোগিতা অব্যাহত রাখা হবে। তিনি আরও বলেন, বাণিজ্য সম্প্রসারণে আইনের সংশোধন করতে হবে। এ আইনগুলো আরও সহজ ও আস্থাশীল করতে হবে। নিয়ন্ত্রণ সংস্থার কার্যক্রমের সংস্কার করতে হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন। 

সংলাপে ইইউ প্রতিনিধি দলে ছিলেন ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূত অ্যালিসন ব্লেক, স্পেনের রাষ্ট্রদূত ডি. আলভেরো ডি সালাস জিমিনেজ ডি আজারাতে, ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূত মিকায়েল হেমনিটিউইনথার, নেদারল্যান্ডসের রাষ্ট্রদূত লিওনি কুইলিনাইর, ফ্রান্সের হেড অব ইকোনমিক ডিপার্টমেন্ট ফ্রানকোইস পিটিট ও সুইডেনের কমার্শিয়াল অফিসার তাজিন চৌধুরী। বাংলাদেশের প্রতিনিধি দলে আরও ছিলেন বাণিজ্য সচিব শুভাশীষ বসু, বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) নির্বাহী চেয়ারম্যান এম আমিনুল ইসলাম, এনবিআরের চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান, রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর ভাইস চেয়ারম্যান বিজয় ভট্টাচার্য্য, আমদানি-রফতানির প্রধান নিয়ন্ত্রক আফরোজা খান, জয়েন্ট স্টক কোম্পানি অ্যান্ড ফার্মসের রেজিস্ট্রার মো. মোশাররফ হোসেন।

(সৌজন্যে: দৈনিক সমকাল) 


Most Recent News

TitleCategoryCreated On
Import/Export2019-10-20 00:40:46
Import/Export2019-08-07 13:28:42
Import/Export2019-08-07 13:23:58
Import/Export2019-08-07 13:19:38
General2019-06-20 02:45:00

Search All News

Member Area

Search this Site
Contents
Search Trade Information 
 
 
 
Export  Resources
 
 
 
Import Resources
 
 
 
 
Feature Information for Entrepreneur
 
 Follow Us
 
         
 
Upcoming Events